২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার

একজন মানবিক কাউন্সিলর

আপডেট: জুন ৩০, ২০২০

| নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন আওতাধীন পুরান ঢাকার ওয়ারী থানাধীন ৩৮নং ওয়ার্ডের নব-নির্বাচিত কাউন্সিলর আহমেদ ইমতিয়াজ মন্নাফী গৌরব। তিনি অত্যন্ত সৎ, শিক্ষিত, মেধাবী, নিষ্ঠাবান, কর্মঠ, জনদরদী ও দায়িত্ববান একজন ব্যক্তি। করোনা মহামারির এই দুর্যোগকালীন সময়ে তিনি তার ওয়ার্ডের প্রতিটি এলাকার মানুষের খোঁজ-খবর নিচ্ছেন।

ব্যক্তিগতভাবে তিনি তার ওয়ার্ডের প্রতিটি এলাকার প্রতিটি মানুষের কাছে গিয়ে সবার খোজ-খবর নিচ্ছেন এবং তার প্রতিটি এলাকার সেচ্ছাসেবক কর্মীদের দ্বারাও সবার খবর নিচ্ছেন।

তার ওয়ার্ডের অসহায়, দরিদ্র, হতদরিদ্র, দিনমজুর, রিক্সাচালক, ভ্যানচালক, মধ্যবিত্ত, নিম্ন-মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত সকল মানুষকে ইতমধ্যে কয়েক দফায় সরকারি তহবিল থেকে এবং তার ব্যক্তিগত তহবিল থেকে চাল, ডাল, আলু, পেয়াজ, আটা, তেল, চিনি, লবন, সাবান, বিস্কুট ইত্যাদি দিয়ে সাহায্য এবং সহযোগিতা করেছেন।

এছাড়া করোনা মহামারির এই দুর্যোগকালীন সময়ে অসহায় এবং দরিদ্র মানুষদেরকে মুখের মাস্ক, পরিস্কার রাখার জন্য হ্যান্ড ওয়াশ, সাবান এবং হেক্সাসল বিতরণ করেছেন। করোনা ভাইরাস থেকে তার ওয়ার্ডকে সুরক্ষিত রাখার জন্য প্রতিটি এলাকার অলিতে গলিতে সেচ্ছাসেবক কর্মীদের দ্বারা এবং অনেক সময় তিনি নিজেও উপস্থিত থেকে জীবাণু নাশক ওষুধ দিয়ে স্প্রে করিয়েছেন এবং সার্বক্ষণিক পরিস্কার রাখার জন্য ব্লিচিং পাউডারও ছিটিয়েছেন। মসজিদ এবং অন্য ধর্মের ধর্মীয় উপাসনালয় পরিস্কার এবং জীবাণুমুক্ত রাখার জন্য স্যাভলন, সাবান এবং ব্লিচিং পাউডার বিতরণ করেছেন।

পবিত্র রমজান মাসে ৩৮নং ওয়ার্ডের অসহায়, দরিদ্র, মধ্যবিত্ত, নিম্ন-মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত সকল ব্যক্তিকে রমজানের জন্য ছোলা-বুট, বেসন, খেজুর, মুড়ি, চিনি, তেল, লবন ইত্যাদি দিয়ে সাহায্য এবং সহযোগিতা করেছেন। প্রায় ৩৫০টি পরিবারকে রাসন কার্ড করে দিয়েছেন।

সরকারি তহবিল থেকে প্রতিটি অসহায়, দরিদ্র, হতদরিদ্র, দিনমজুর, রিক্সাচালক, ভ্যানচালক, মধ্যবিত্ত, নিম্ন-মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত সকল ব্যক্তিকে ২৫০০ টাকা করে দেয়ার জন্য যে ঘোষণা দেয়া হয়েছিল তার জন্য প্রায় ৩০০০ পরিবারের নাম ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে জমা দিয়েছেন।

পবিত্র ঈদুল ফিতরের ২দিন পূর্বে তার কাউন্সিলর কার্যালয় থেকে ১০০০ অসহায় ও দরিদ্র পরিবারকে ঈদুল ফিতরের জন্য তার ব্যক্তিগত তহবিল থেকে নগদ অর্থ দিয়ে সাহায্য করেছেন এবং ঈদের জন্য সেমাই, চিনি, দুধ, সাবান, চাল এবং একটি করে মুরগি বিতরণ করেন।

ঈদের নামাজের জন্য তার ওয়ার্ডের সকল মসজিদ স্যাভলন, সাবান এবং ব্লিচিং পাউডার দিয়ে হাত পরিস্কার করার ব্যবস্থা করেন এবং নামাজের জন্য আগত মুসল্লিদের জন্য হ্যান্ড গ্লাবস এবং মাস্কের ব্যবস্থা করেন। এখন তার ওয়ার্ডের ছোট বাচ্চা-শিশু ছাত্র-ছাত্রীদের মেধার বিকাশের জন্য এবং তাদের পড়াশুনার প্রতি উৎসাহ যোগানোর জন্য দুধ, ডিম, হরলিক্স, কেক, নুডুলস, বিস্কুট ইত্যাদি দিয়ে প্রতিটি ছাত্র-ছাত্রীদের দ্বারে-দ্বারে তার সেচ্ছাসেবক কর্মীদেরকে দিয়ে পাঠাচ্ছেন।