১০ই আগস্ট, ২০২০ ইং, সোমবার

চেয়ারম্যান ইউসুফ আলীর নিজ উদ্যোগে বাড়ী ফিরে পেলো ভিক্ষুক মমিরন

আপডেট: জুলাই ৪, ২০২০

| জাকির হোসেন, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি

গত ২৬ জুন প্রভাবশালী ভূমিদস্যু গনি মিয়া তার ভাড়া করা সন্ত্রাসী দিয়ে ভূমিহীন ভিক্ষুক মমিরন বেগমের (৬০) একমাত্র আশ্রয়স্থল সরকারি খাস জমিতে গড়ে তুলা বাড়ি ভাংচুর ও উচ্ছেদ করে দেয়। পরবর্তীতে ২ নং শিলখুড়ী ইউপির চেয়ারম্যান ইউসুফ আলী তার নিজ উদ্যোগে বাড়ী করে দেন।

উল্লেখ্য, গত ২৬ জুন শুক্রবার ভোর ৭টার দিকে কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলার পাগলারহাট বাজারে ভূমিদস্যু গনি মিয়ার ২৫/২৬ জন সন্ত্রাসী দেশীয় অস্রসহ হাজির হয় ভিক্ষুক মমিরনের বাড়ীতে এবং ঘর ভেঙ্গে দিয়ে লোটপাট করে নেয়। এক পর্যায়ে পুলিশ আসার খবর পেয়ে সন্ত্রাসীরা পালানোর চেষ্টা করলে এলাকাবাসী তাদের আটকাতে এগিয়ে যায়, তখন তারা এলাকাবাসীর উপরেও হামলা করে। পুলিশ এসে গনি মিয়া ও মমিরন বেগমের ছেলেকে থানায় নিয়ে যায়। পরবর্তীতে উপজেলা চেয়ারম্যান মুচলেকা দিয়ে তাদের নিয়ে আসে। জানাগেছে, পাগলাহাট বাজারের একপাশে কিছু খাস জমিতে বহুবছর ধরে বাড়ী করে আছেন ৪টি পরিবার। কয়েক বছর থেকেই স্থানীয় প্রভাবশালী গনি মিয়া যিনি পেশায় একজন মহুরি তিনি এসব পরিবারকে উচ্ছেদ করার চেষ্টা করছিলেন।

অসহায় ভিক্ষুক মমিরন বেগম বাড়ীহারা হয়ে খোলা আকাশের নিচে ৩ দিন যাপন করার পর ২ নং শিলখুড়ী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ ইউসুফ আলী তার নিজের উদ্যোগে বাড়ী করে দেন। শত বাধা বিপত্তির মধ্যেও গরীব অসহায় মমিরন বেগমের পাশে দাঁড়ানোর জন্য এলাকাবাসী চেয়ারম্যানের প্রতি সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন।

ভিক্ষুক মমিরন বেগম তার ঘর ফিরে পেয়ে চেয়ারম্যান ইউসুফ সহ এলাকাবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন এবং বলেন চেয়ারম্যান না থাকলে হয়ত তাকে সারাজীবন রাস্তায় রাস্তায় থাকতে হতো। তিনি চেয়ারম্যানের সুস্বাস্থ্য ও মঙ্গল কামনা করেন।