৫ই জুলাই, ২০২০ ইং, রবিবার

ফেসবুকে সুশান্তকে শ্রদ্ধা জানিয়ে তরুণীর আত্মহত্যা

আপডেট: জুন ১৯, ২০২০

| পিবিএন ডেস্ক

অভিনেতা সুশান্তের মৃত্যু মেনে নিতে না পেরে ও ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে হতাশায় তারই মতো আত্মহত্যা করলেন অরুন্ধতি দাস (৩২) নামের এক তরুণী। ভারতের হুগলি জেলার উত্তরপাড়ায় বৃহস্পতিবার (১৮ জুন) দুপুরে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি।

সুশান্তের মৃত্যু তাকে ভেতর থেকে নাড়া দিয়ে গিয়েছিল। মৃত্যুর আগে অরুন্ধতি দাস ফেসবুকে সুশান্ত সিং রাজপুতেকে নিয়ে একটি পোস্ট শেয়ার করেন। তাতে তিনি লেখেন, ‘তুমি রবে নীরবে’।

মা বাবা আর ছোট বোনের সঙ্গে থাকতেন অরুন্ধতি। পরিবার জানিয়েছে মানসিক অবসাদ ছিল তাঁর। কলকাতায় একটি বেসরকারি সংস্থায় আইটি সেক্টরে চাকরি করতেন।

রবীন্দ্রভারতীর ইংরাজি সাহিত্যের ছাত্রী অরুন্ধতির বিয়ে ভেঙে গিয়েছিল কয়েক বছর আগেই। যে চাকরিটা করতেন, সেটাও চলে যায় লকডাউনের আগে। অবসাদগ্রস্ত হয়ে পরেন তিনিও। ইদানিং প্রাইভেট টিউশনি করতেন।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে তাঁর আচরণ স্বাভাবিকও ছিল। মাংস রান্না করে অরুন্ধতী স্নান করতে যান। কিন্তু অনেকটা সময় কেটে গেলেও তিনি বাথরুম থেকে বের হননি। ডাকাডাকি করেও কোনো লাভ হয়নি।

দরজা ভেঙে দেখা যায় শাওয়ারে ওড়নার ফাঁস লাগিয়ে ঝুলছেন তিনি। সঙ্গে সঙ্গে তাকে উত্তরপাড়া স্টেট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু তাকে বাঁচানো যায়নি।

শুধু পেশাগত জীবন নয়, অরুন্ধতীর ব্যক্তিগত জীবনও সুখের ছিল না। বছর চারেক আগে বিয়ে হয় তার। কিন্তু দুই বছরের বেশি সংসার করতে পারেননি। বছর দুই আগে বিচ্ছেদ হয় তার।

এর ওপর লকডাউনে কাজ হারানোর হতাশা তিনি নিতে পারেননি। যদিও হতাশায় একেবারে চুপচাপ হয়ে যাননি। বৃহস্পতিবার সকালে মায়ের সঙ্গে স্বাভাবিক কথাবার্তা হয় তার। তিনিও মেয়ের আচরণে অন্য রকম কিছু লক্ষ্য করেননি।

কেন অরুন্ধতী আত্মঘাতী হলেন, তা জানতে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। শোকাহত গোটা পরিবার। শ্রীরামপুর ওয়ালশ হাসপাতালে ওই তরুণীর ময়নাতদন্ত হবে।